সৈয়দা সাজেদা খসরু নিশা, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: হাইড্রোপনিক (Hydroponic) হলো মাটি ছাড়া পানিতে ফসল উৎপাদনের ( বিশেষ করে সবজি) চাষের আধুনিক পদ্ধতি। হাইড্রোপনিক পদ্ধতিতে নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে মাটির পরিবর্তে পানিতে গাছের প্রয়াজনীয় খাবার সরবরাহ করে ফসল উৎপাদন করা যায়।

সম্প্রতি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) বিজ্ঞানীরা এ প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন।

শহুরে জীবনে গতানুগতিক বাগান করার জন্য উপযোগী স্পেস ও প্রয়োজনীয় উপাদান যেমন, মাটি, গোবর, সার, টব ইত্যাদি উপাদানগুলো সহজলভ্য নয়। সেক্ষেত্রে ফ্লাট বাড়ির বারান্দা, ছাদের কর্নার, টেরেস ইত্যাদি হতে চাষাবাদের আদর্শ স্থান। তাছাড়া মাটির উর্বরতার বিষয়টি এখানে বিবেচনায় আসে না।

উৎপাদিত ফসলের মান ও পরিমাণ প্রচলিত কৃষি পদ্ধতির চাইতে অনেক বেশি। এসব কারণেই বহির্বিশ্ব তথা উন্নত বিশ্বে এটা খুবই জনপ্রিয় ও বহুল প্রচলিত একটা চাষ পদ্ধতি।

এছাড়াও এই চাষাবাদে কোনো কীটনাশক বা আগাছানাশক কিংবা অতিরিক্ত সার দেয়ার প্রয়োজন পড়ে না।ফলে এসব সবজি পোকামাকড় বা কীটনাশকমুক্ত এবং মান সম্মত| তাই হাইড্রোপনিক পদ্ধতিতে অনায়াসে গড়ে তুলা সম্ভব অরগানিক ফসলের সম্ভার।

হাইড্রোপনিক পদ্ধতিতে যেসব ফসল উৎপাদন করা যায়ঃ ১। পাতা জাতীয় সবজি- লেটুস, গিমা কলমি, বিলাতি ধনিয়া, বাঁধাকপি ইত্যাদি। ২। ফল জাতীয় সবজি- টমেটো, বেগুন, ক্যাপসিকাম, ব্রোকলি, ফুলকপি, শসা, খিরা, মেলন, স্কোয়াস ইত্যাদি।৩।ফল জাতীয়- স্ট্রবেরী ৪। ফুল জাতীয়- এন্থরিয়াম, গাঁদা, গোলাপ, অর্কিড, জারবেরা, চন্দ্রমল্লিকা ইত্যাদি।

হাইড্রোপনিক কিভাবেঃ

চারা তৈরিঃ হাইড্রোপনিক পদ্ধতিতে বিভিন্ন inert material যেমন কোকোপিট, রক উল, পারলাইট, ভার্মিকুলেট, ফোম কিউব ইত্যাদির মধ্যে চারা তৈরি করতে হয়।

মিডিয়াঃ চারা তৈরী করার পর সেগুলো প্রতিস্থাপনের জন্য মিডিয়া হিসেবে কোকোপিট ও ছোট ছোট ঝামা ইটের খোয়া ব্যবহার করা যেতে পারে।

চারা স্থানান্তরঃ চারা স্থানান্তরের উপযোগী হলে যে মিডিয়ার মধ্যে চারাটি তৈরি করা হয়েছে সেগুলোসহ চারাটিকে সাবধানে মূল মিডিয়ায় স্থাপন করতে হবে এবং চারায় নিউট্রিয়েন্টস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে।

পিএইচ মিটারঃ সাধারণত ৫.৫ থেকে ৬.৫ পিএইচ মানে গাছ সর্বোত্তম পুষ্টি উপাদান নিতে পারে। তাই হাইড্রোপনিক চাষাবাদের ক্ষেত্রে এই পিএইচ মান বজায় রাখাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে দিন দিন আবাদি জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। পক্ষান্তরে বর্ধিত মুখের চাহিদা পূরণ করতে প্রয়োজন হচ্ছে অতিরিক্ত খাদ্য। হাইড্রোপনিক হল একটি অত্যাধুনিক ফসল চাষ পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে মাটি ছাড়া ভিন্ন মাধ্যমে ফসল উৎপাদন করে সে চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। এ পদ্ধতিতে একদিকে যেমন অনুর্বর এবং উপকূলীয় লবণাক্ত এলাকার জায়গা ব্যবহার করে নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে ফসল উৎপাদন করা যাবে তেমনি শহরেও বদ্ধ জায়গায় উচ্চমূল্যের ফসল উৎপাদন করে লাভবান হওয়া সম্ভব হবে।

ইউরোপ, আমেরিকা, জাপান, তাইওয়ান, চীন, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো অনেক আগে থেকেই বাণিজ্যিকভাবে হাইড্রোপনিক পদ্ধতির মাধ্যমে সবজি ও ফল উৎপাদন করা হচ্ছে। বাংলাদেশও এ পদ্ধতি ব্যবহারে ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।

জনপ্রিয় হচ্ছে মাটি ছাড়াই ফসল উৎপাদন পদ্ধতি লেখাটি লিখেছেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থী সৈয়দা সাজেদা খসরু নিশা।

 

এগ্রিকেয়ার/এমএইচ