নিজস্ব প্রতিবেদক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: কৃষি উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতে নতুন উদ্ভাবনী নিয়ে শিক্ষিত তরুণ প্রজন্মকে কৃষিকাজে নামার আহ্বান জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, শিক্ষিত তরুণেরা পুরনো পদ্ধতির কৃষিতে আকৃষ্ট হবে না। তাঁরা হাল নিয়ে চাষাবাদে বা হাত দিয়ে ধান লাগাতে কম আগ্রহী হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাঁরা উন্নত প্রযুক্তির আধুনিক কৃষি উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতে আগ্রহী হবে।

আজ রোববার ২৬ জুলাই ২০২০ নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে গ্রামীণ কৃষি অর্থনীতি শক্তিশালীকরণে যুব উদ্যোক্তা শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, এ সরকার কৃষিকে লাভজনক, আধুনিকীকরণ ও যান্ত্রিকীকরণে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। সম্প্রতি কৃষি যান্ত্রিকীকরণের নেয়া হয়েছে ৩ হাজার ২০ কোটি টাকার প্রকল্প। যার মাধ্যমে প্রায় ৫২ হাজার আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি কৃষকদের দেয়া হবে। এতে কৃষি উৎপাদন যেমন বাড়বে তেমনি কৃষিপণ্যের প্রক্রিয়াজাতও বাড়বে। পাশাপাশি, কৃষির যান্ত্রিকীকরণের ফলে দেশের শিক্ষিত বেকার তরুণেরা খুব সহজেই কৃষিকাজে আকৃষ্ট হবে, আগ্রহী হবে। তরুণেরা শুধু প্রচলিত ফসল নয়, অপ্রচলিত ফসল যেমন কাজু বাদাম, কফি, ড্রাগন ফল, গোল মরিচসহ নতুন নতুন ফসলের চাষাবাদে ব্যাপক পরিবর্তন আনতে সক্ষম হবে।

শিরোনামে সংবাদের তথ্য নিশ্চিত করেছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্য অফিসার মো. কামরুল ইসলাম ভূইয়া।

এ ওয়েবিনারে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক মো. হুমায়ুন কবীর। উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয় বোর্ড অব ট্রাস্টের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু ইউসুফ মো. আবদুল্লাহ, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান এস.এম.বখতিয়ার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। ওয়েবিনারে কোভিড-১৯ চলাকালীন সম্ভাব্য খাদ্য সংকট মোকাবিলা, গ্রামীণ কৃষি অর্থনীতি শক্তিশালীকরণ ও কৃষিকে লাভজনক করতে তরুনদের উদ্যোক্তা হওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।