আশ্বিন মাসে হাঁস-মুরগি

প্রাণি ডেস্ক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: আশ্বিন মাসে হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশুর চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং সতর্কতা নিচে তুলে ধরা হলো। কঋতু পরিবর্তনের সাথে হাঁস মুরগি গবাদিপশু নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এ সময়ে অর্থাৎ আশ্বিন মাস (সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর) থাকতে হবে সতর্ক। নিয়ম মেনে কিছু পদক্ষেপ ও চিকিৎসা করাতে হবে।



হাঁস মুরগির কলেরা, ককসিডিয়া, রাণীক্ষেত রোগের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। প্রাথমিকভাবে টিকা প্রদান, প্রয়োজনীয় ওষুধ খাওয়ানোসহ প্রাসঙ্গিক বিষয়ে প্রাণি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া আবশ্যক।

এ মাসে হাঁস-মুরগির বাচ্চা ফুটানোর ব্যবস্থা নিতে পারেন। বাচ্চা ফুটানোর জন্য অতিরিক্ত ডিম দেবেন না। তাছাড়া ডিম ফুটানো মুরগির জন্য অতিরিক্ত বিশেষ খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

আশ্বিন মাসে গবাদিপশুকে কৃমির ওষুধ খাওয়ানো দরকার। গবাদি পশুকে খোলা জায়গায় না রেখে রাতে ঘরের ভিতরে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে।

পানিতে জন্মানো পশু খাদ্য এককভাবে না খাইয়ে শুকিয়ে খরের সাথে মিশিয়ে খাওয়াতে হবে। এ সময় ভুট্টা, মাসকলাই, খেসারি বুনো ঘাস উৎপাদন করে গবাদিপশুকে খাওয়াতে পারেন।

গর্ভবতী গাভীকে, সদ্য ভূমিষ্ঠ বাছুর ও দুধালো গাভীর বিশেষ যত্ন নিতে হবে। এ সময় গবাদি প্রাণির মড়ক দেখা দিতে পারে। তাই গবাদিপশুকে তড়কা, গলাফুলা, ওলান ফুলা রোগের জন্য প্রতিষেধক, প্রতিরোধক ব্যবস্থা গ্রহণ নিশ্চত করতে হবে।

আশ্বিন মাসে হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশুর চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং সতর্কতা সংবাদটির তথ্য কৃষি তথ্য সার্ভিস থেকে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: ধান চাষে ক্ষতিকর মাজরা পোকা দমনে এসিআই ক্রপ কেয়ারে মিলছে নিশ্চিত সমাধান