আন্তর্জাতিক কৃষি ডেস্ক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: বর্তমান মার্কিন সরকার কৃষিপণ্যের এ উচ্চমূল্যের দুর্বলতাকে বজায় থাকতে সাহায্য করছে। অর্থাৎ এর কারণ কমেছে মার্কিন কৃষিপণ্য রফতানি। তবে এ পরিস্থিতি বেশি দিন ধরে চলমান থাকলে রফতানিতে ঘাটতি তৈরি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

সংবাদমাধ্যম রয়টার্স জানিয়েছে, সরবরাহ ঘাটতি ও কয়েক বছরের মধ্যে মূল্যের সর্বোচ্চ সূচক স্পর্শের পরও বিশ্বব্যাপী কৃষিপণ্যের চাহিদা বেশ বাড়তি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে কিছু পণ্যের ক্ষেত্রে রফতানির পরিমাণ কমে আসা প্রমাণ করে যে মূল্য বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কিছু মার্কিন পণ্য কীভাবে বাজারে সংকট তৈরি করে। সম্প্রতি মার্কিন কৃষিপণ্যের রফতানি মূল্য নতুন রেকর্ড স্পর্শ করলেও গম, সয়াবিন ও তুলা এক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়েছে।

অক্টোবরে বিশ্বব্যাপী মার্কিন কৃষি ও কৃষিসম্পর্কিত পণ্যে রফতানির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৯০৮ কোটি ডলার। মাসিক ভিত্তিতে এটি যেকোনো সময়ের তুলনায় সর্বোচ্চ পরিমাণ। ইউএস ক্যানসাস ব্যুরোর প্রকাশিত তথ্যে এমনটা দেখা যায়।

এ সময়ে চীনে মার্কিন কৃষিপণ্য রফতানির পরিমাণ ছিল ৫৫২ কোটি ডলার সমপরিমাণ। এর আগে ২০২০ সালের নভেম্বরে চীনে দেশটির সর্বোচ্চ পরিমাণ কৃষিপণ্য রফতানির তুলনায় এটি ৭ শতাংশ বেশি। অক্টোবরে বিশ্বের অন্যান্য গন্তব্যে রফতানীকৃত মার্কিন কৃষিপণ্যের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৩৬০ কোটি ডলার। ২০২১ সালের মার্চের পর এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রফতানির পরিমাণ।

অক্টোবরে বছরের প্রথমে থাকা উচ্চমূল্যের স্তর থেকে কমে এসেছে মার্কিন ভুট্টা ও সয়াবিনের রফতানি মূল্য। এ সময়ে গমের রফতানি মূল্য নয় বছরের সর্বোচ্চে পৌঁছেছে বলেও দেখা যায়। এ মাসে মার্কিন গমের রফতানি দাঁড়ায় ১২ লাখ ২০ হাজার টন। ১৯৭২ সালের জানুয়ারির পর থেকে মাসিক ভিত্তিতে এটি সর্বনিম্ন পরিমাণ গম রফতানি। ফলে ২০২১-২২ সালের প্রথম পাঁচ মাসে রফতানীকৃত মোট মার্কিন গমের পরিমাণ দাঁড়ায় ১ কোটি ২ লাখ টন।

সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বব্যাপী ভোজ্যতেলের চাহিদা বাড়তির দিকে থাকলেও উচ্চমূল্যের কারণে মার্কিন সয়াবিনের রফতানি নিমজ্জিত হয়েছে। অক্টোবরে দেশটির সয়াতেল রফতানির পরিমাণ ছিল ২৬ হাজার টনের কিছু কম। ২০০০ সালের পর মাসিক ভিত্তিতে এটি সর্বনিম্ন পরিমাণ। জুলাই-অক্টোবর পর্যন্ত মার্কিন সয়াতেল রফতানির পরিমাণ ছিল ৬৯ হাজার টন, যা ১৯৭৫ সালের একই সময়ের তুলনায় সর্বনিম্ন।

একই সময়ে শীর্ষ সয়াতেল রফতানিকারক আর্জেন্টিনার রফতানির পরিমাণ কমলেও যেকোনো সময়ের তুলনায় বেড়েছে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলের রফতানি।অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রের তুলা রফতানির পরিমাণ ছিল এক লাখ টন। ২০১৫ সালের নভেম্বরের পর থেকে এটি মাসিক ভিত্তিতে সর্বনিম্ন পরিমাণ।

এগ্রিকেয়ার/এমএইচ