সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ৯:৪৮
Home > মৎস্য > চলতি প্রজনন মৌসুমে ৪৮ ভাগ মা ইলিশ সম্পুর্ণভাবে ডিম ছেড়েছে
2097_ACS_1627_19-Poultry_Dairy-Ad
২২ দিন ইলিশ আহরণ

চলতি প্রজনন মৌসুমে ৪৮ ভাগ মা ইলিশ সম্পুর্ণভাবে ডিম ছেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদনক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: চলতি প্রজনন মৌসুমে ৪৮ ভাগ মা ইলিশ সম্পুর্ণভাবে ডিম ছেড়েছে। যা গতবারের চেয়ে চেয়ে ১.১৮% বেশী। ২২ দিন ইলিশ ধরাসহ যাবতীয় কাজ বন্ধ রাখায় এ সফলতা এসেছে।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট এর গবেষণায় উঠে এসেছে এসব তথ্য। বলা হয়েছে, চলতি প্রজনন মৌসুমে ২২ দিন ইলিশ মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে শতকরা ৪৮.৯২ ভাগ মা ইলিশ সম্পূর্ণভাবে নদীতে ডিম ছেড়েছে।

ইনস্টিটিউট হতে পরিচালিত এ গবেষণা প্রতিবেদন সম্প্রতি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও মৎস্য অধিদপ্তরে জমা দেয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ইলিশের সর্বোচ্চ প্রজনন মৌসুম নির্ধারণ করে চলতি বছর ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর মোট ২২ দিন দেশব্যাপী ইলিশ মাছ ধরা, খাওয়া, মজুদ, বিনিময় ও পরিবহনের উপর সরকার কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

ওই নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন¯ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে ৩টি গবেষক দল ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্রসহ বিভিন্ন নদ-নদী ও ইলিশ অবতরণ কেন্দ্রে গবেষণা পরিচালনা করে।

গবেষণাকালে নিষিদ্ধকালীন সময়ের পূর্বের ১০ দিন, নিষিদ্ধকলীন সময়ে ২২ দিন এবং নিষিদ্ধকালীন সময়ের পরে ১০ দিন নমুনায়ন ও তথ্য সংগ্রহ করা হয়।

গবেষণায় দেখা যায় যে, চলতি বছরে ২২ দিন নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে ৪৮.৯২ ভাগ মা ইলিশ সম্পূর্ণভাবে ডিম ছেড়েছে যা গতবারের (৪৭.৭৪%) চেয়ে ১.১৮% বেশী।

তাছাড়া, গত ২০১৭, ২০১৬, ২০১৫, ও ২০১৪ সালে ডিম ছাড়ার হার ছিল যথাক্রমে – ৪৬.৪৭%, ৪৩.৯৫%, ৩৬.৬০%, ও ৩৮.৭৯%। এতে ৩৭ হাজার কোটি জাটকা নতুন করে ইলিশ পরিবারের সাথে যুক্ত হয়েছে।

এসব জাটকা ৫-৭ মাস নদ-নদীতে বড় হয়ে সাগরে চলে যাবে এবং সেখানে বড় হয়ে ডিম ছাড়ার জন্য আবার নদ-নদীতে চলে আসবে।

উল্লেখ্য, ইলিশ মাছ সারা বছরই কম-বেশী ডিম ছাড়ে। তবে ইলিশের সর্বোচ্চ প্রজনন মৌসুম হচ্ছে অক্টোবর-নভেম্বর মাস।

এটি মূলতঃ আশ্বিন মাসের পূর্ণিমা ভিত্তিক। এজন্য ইলিশ ধরা নিষিদ্ধকালীন সময় বছর বছর পরিবর্তিত হয়। চলতি বছর ছিল আশ্বিনের ভরা পূর্ণিমার আগের দিন, পূর্ণিমার দিন এবং পূর্ণিমার পরের ১৭ দিন (৪+১+১৭)৯-৩০ অক্টোবর।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণা তথ্যের ভিত্তিতে নিষিদ্ধকালীন এ সময় নির্ধারণ করা হয়। উল্লেখ্য, মা ইলিশ ধরা ও জাটকা ধরা বন্ধ রাখার কারণে ইলিশের উৎপাদন সাম্প্রতিককালে বৃদ্ধি পেয়ে ৫.১৭ লক্ষ মে. টনে উন্নীত হয়েছে।

গত ১১ বছরে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে ৭৮%। চলতি বছর মা ইলিশ সুরক্ষিত হওয়ায় এবার ইলিশের উৎপাদন আরো বাড়বে বলে বিজ্ঞানীরা মনে করছেন।

চলতি প্রজনন মৌসুমে ৪৮ ভাগ মা ইলিশ সম্পুর্ণভাবে ডিম ছেড়েছে সংবাদটির তথ্য বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।

About এগ্রিকেয়ার২৪.কম

Check Also

পুকুরে নিয়মিত প্রোবায়োটিকস প্রয়োগ

পুকুরে নিয়মিত লবণ ও জীবণুনাশক প্রয়োগের গুরুত্ব

মুহাম্মদ সালাহ উদ্দীন রাশেদ, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: প্রিয় মাছ চাষি আজ পুকুরে নিয়মিত লবণ ও জীবণুনাশক প্রয়োগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

স্বত্ব © এগ্রিকেয়ার টোয়েন্টিফোর.কম (২০১৭-২০১৯)
সম্পাদক: কৃষিবিদ মো. হামিদুর রহমান। নির্বাহী সম্পাদক: মো. আবু খালিদ।
যোগাযোগ: ২৩/৬ আইওনিক প্রাইম, রোড ২, বনানী, ঢাকা ১২১৩।
Email: agricarenews@gmail.com, Mobile Number: 01831438457, 01717622842