রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৩:৩১
Home > ফসল > জৈবপ্রযুক্তির গবেষণা ও উৎপাদিত পণ্যে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থার গ্রহণের আহ্বান
2097_ACS_1627_19-Poultry_Dairy-Ad
জৈবপ্রযুক্তির গবেষণা ও উৎপাদিত

জৈবপ্রযুক্তির গবেষণা ও উৎপাদিত পণ্যে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থার গ্রহণের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: আধুনিক জৈবপ্রযুক্তির গবেষণা ও উৎপাদিত পণ্যে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থার গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

তিনি বলেছেন, আধুনিক জৈব প্রযুক্তি সংক্রান্ত গবেষণা ও উন্নয়ন এবং এর ব্যবহারে উৎপাদিত পণ্য পরিবহন, আমদানি ও রপ্তানির ক্ষেত্রে পূর্ব সর্তকতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।



আজ শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর গুলশানে ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজিত ৩ দিনব্যাপী 7th Annual South Asia Biosafety Conference এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কৃষিমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বাংলাদেশ জাতিসংঘ জৈব বৈচিত্র সনদের আওতায় গ্রহীত জৈব নিরাপত্তা বিষয়ক কার্টাহেনা চুক্তি অনুযায়ী জৈব  নিরাপত্তা বিধানের বিষয়ে প্রতিশ্রুতবদ্ধ।

বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১৭০ টি দেশ কার্টাহেনা চুক্তিতে সাক্ষর করেছে এবং জৈব  নিরাপত্তার ব্যাপারে বাংলাদেশ সব সময় সচেষ্ট বলে উল্লেখ করেন কৃষিমন্ত্রী। তিনি বলেন, আধুনিক জৈব প্রযুক্তির অপার সম্ভাবনা ও সুফলের পাশাপাশি পৃথিবীব্যাপী এর ঝুঁকির বিষয়ে চলছে নানা গবেষনা আর জল্পনা কল্পনা।

জৈববৈচিত্র আর মানব স্বাস্থ্য অটুট না হলে আমাদের পিছিয়ে পড়তে হবে। প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট সকল গবেষণা এবং এর প্রয়োগ যাতে মানুষ ও অন্যান্য জীবের কল্যানে লাগে সেই চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

বাংলাদেশের আমিষের জোগানে পোলট্রি শিল্পকে অবশ্যই স্বীকৃতি দিতে হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী। তিনি বলেন, পোলট্রি শিল্প বিকাশে জৈব  নিরাপত্তা বিশেষ ভূমিকা পালন করে সব সময়।

ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, পোলট্রি পালনে মূল সমস্যা হচ্ছে খামার ব্যবস্থাপনা ও কিছু গুরুত্বপূর্ণ রোগ প্রতিরোধ করা। যদি খামার ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা অর্জন করা যায় তবে পোলট্রি পালন লাভজনক হয়। খামার ব্যবস্থাপনার মূল বিচার্য বিষয় হচ্ছে খামারে জীব নিরাপত্তা জোরদার করা বলে যোগ করেন তিনি।

বাংলাদেশ ইতোমধ্যে বায়োসেফটি রুলস অব বাংলাদেশ ২০১২ এবং জৈবপ্রযুক্তির গবেষণা ও উৎপাদিত পণ্যে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থার গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে অনুষ্ঠানে কৃষিবিদ ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বায়োসেফটি গাইড লাইন অব বাংলাদেশ ২০০৮ প্রণয়ন করেছে।

তিনি বলেন, আমাদের রোগ প্রতিরোধের সব চাইতে সহজ ও কার্যকরী উপায় হচ্ছে জৈব  নিরাপত্তা। বসতবাড়ী হতে খামাড় সব যায়গাতেই জৈব  নিরাপত্তা অর্থাৎ রোগের জীবাণু প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য ড. বিভা আহুজা, চিফ জেনারেল ম্যানেজার, বায়োটেক কনসোর্টিয়াম ইন্ডিয়া লি: (Dr.Vibha Ahuja, Chief General Manager, Biotech Consortium india Ltd);

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুল্লাহ আল মহসিন চৌধুরী ও কৃষি সচিব মো: নাসিরুজ্জামান।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের কৃষিতে আরও বেশি গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে চায় মার্কিন সরকার

About এগ্রিকেয়ার২৪.কম

Check Also

ব্রির শততম জাত উদ্ভাবনের

ব্রির শততম জাত উদ্ভাবনের মাইলফলক অর্জন

কৃষিবিদ এম. আব্দুল মোমিন: ব্রির শততম জাত উদ্ভাবনের মাইলফলক অর্জন হয়েছে। ধানের উচ্চ ফলনশীল (উফশী) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

স্বত্ব © এগ্রিকেয়ার টোয়েন্টিফোর.কম (২০১৭-২০১৯)
সম্পাদক: কৃষিবিদ মো. হামিদুর রহমান। নির্বাহী সম্পাদক: মো. আবু খালিদ।
যোগাযোগ: ২৩/৬ আইওনিক প্রাইম, রোড ২, বনানী, ঢাকা ১২১৩।
Email: agricarenews@gmail.com, Mobile Number: 01831438457, 01717622842