এবার শুরুও হতে যাচ্ছে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া। ইতিমধ্যে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া শুরু, ২৫ হাজার টনের আবেদন পরেছে। ভারতের থেকে রপ্তানীর নিষেধাজ্ঞা

অর্থ বাণিজ্য ডেস্ক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: ভারত পেঁয়াজ রপ্তানীর নিষেধাজ্ঞা তুলে দেয়ার খবরে দেশের বিভিন্ন বাজারে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া শুরু, ২৫ হাজার টনের আবেদন পরেছে।

ভারতের থেকে রপ্তানীর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পরেই দেশের ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা প্রাথমিকভাবে ভারত থেকে ২৫ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য হিলির উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের কাছে ইমপোর্ট পারমিটের (আইপি) জন্য আবেদন করেছেন। খবর; বণিক বার্তা।

সংবাদ মাধ্যমটিতে জানানো হয়েছে, স্থানীয় পেঁয়াজ আমদানিকারক মাহফুজার রহমান বাবু জানান, অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির কারণে গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত।

এতে বলা হয়, পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়া হয়। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে দেশের বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক করতে ও মূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য অনুমতি চেয়ে উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে আইপির জন্য আবেদন করছেন হিলির আমদানিকারকরা।

এ পর্যন্ত (১ মার্চ, ২০২০) হিলির আমদানিকারকরা ২৫ হাজার টনের মতো পেঁয়াজ আমদানির জন্য অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছেন।

হিলি স্থলবন্দর উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র থেকে জানানো হয়, অনেক আমদানিকারক পেঁয়াজের আইপির জন্য আবেদন করেছেন। তবে আবেদন অনলাইনের মাধ্যমে হওয়ায় তারা এখনই বলতে পারছেন না, কে কতটুকু পেঁয়াজ আমদানি করতে চান। দু-একদিনের মধ্যেই ঢাকা থেকে আইপি ইস্যু হবে।

ঢাকার খুচরা বাজারে গতকাল শনিবারও কেজিপ্রতি ১০০ টাকা পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে আজ রোববার (১ মার্চ) দেশের বিভিন্ন স্থানে পেঁয়াজের কেজি ৫০ টাকার নিচে নেমে এসেছে। নাটোরে আরও কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে বলে একাধিক গণমাধ্যমে ওঠে এসেছে।

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া শুরু, ২৫ হাজার টনের আবেদন শিরোনামের সংবাদটির তথ্য বণিক বার্তা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনাভাইরাস সংক্রমিত দেশের প্রাণি-সম্পদ আমদানিতে ১৫দিন পর্যবেক্ষণের পর ছাড়পত্র