শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১০:৪৮
Home > মৎস্য > ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষেধ (৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত)
2097_ACS_1627_19-Poultry_Dairy-Ad
২২ দিন ইলিশ আহরণ

২২ দিন ইলিশ ধরা নিষেধ (৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত)

মৎস্য ডেস্ক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম:  আগামী ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষেধ (৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত) ‍বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু।

রোববার (৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯) সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে আন্তমন্ত্রণালয় সভা শেষে প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের কাছে এ তথ্য তুলে ধরেন।



এই সময়ে ইলিশের আহরণ, পরিবহন, মজুত, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় নিষিদ্ধ। ওই সময়ের মধ্যে এসব কার্যক্রম সম্পাদন করলে তা বেআইনি হবে।

প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু জানান, এ সময়ের মধ্যে ৮০ শতাংশ মা ইলিশ ডিম পাড়ে। আর এই ডিম পাড়ে মূলত মিঠা পানিতে। তাই আশ্বিনের পূর্ণিমার চার দিন আগে এবং পূর্ণিমার পর ১৮ দিন মোট ২২ দিন দেশের উপকূলীয় অঞ্চল, নদীর মোহনাসহ যেসব জেলা ও নদীতে ইলিশ পাওয়া যায়, সেখানে মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তবে ইলিশ ধরা বন্ধ থাকার সময় যেসব জেলার জেলেরা মাছ ধরার ওপর নির্ভরশীল, তাঁদের খাদ্য সহযোগিতা দেওয়া হবে। এ সময়ে মাছ পরিবহন, গুদামজাতকরণ, বাজারে বিক্রি নিষিদ্ধ থাকবে। এটা তখন বেআইনি হবে।

জেলেদের খাদ্য সহায়তায় দুর্নীতি লক্ষ করা যাচ্ছে, এমন প্রশ্নের উত্তরে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে আমি ঢাকা, চট্টগ্রামে চ্যালেঞ্জ করছি। আপনারা নির্দিষ্ট করে দেখান। আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ অন্যরা তৎপর ছিলেন। স্থানীয় প্রতিনিধিসহ জেলে প্রতিনিধিদের মাধ্যমে চাল বিতরণ করা হয়েছে।

নিষিদ্ধ সময়ে পার্শ্ববর্তী দেশের মাছ ধরার ট্রলার আমাদের সমুদ্রসীমা থেকে ইলিশ নিয়ে যায়, এমন প্রশ্ন করা হয় প্রতিমন্ত্রীকে।

উত্তরে তিনি জানান, বিদেশ থেকে বাইরের কোনো জাহাজ আসতে পারে না। আমাদের কোস্টগার্ড নেভির কর্মকর্তারা তৎপর রয়েছেন। তবে আগে আমাদের কিছু জাহাজ অন্যদের জলসীমায় চলে যেত। কারণ তখন আমাদের জলসীমা নির্দিষ্ট ছিল না।

আমরাও এত শক্তিশালী ছিলাম না উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন আমাদের জরিপ জাহাজসহ অনেক জাহাজ রয়েছে, হেলিকপ্টার রয়েছে, রাডার রয়েছে। এগুলো আমরা সব সময় ব্যবহার করি। আমাদের দেশে যখন মাছ ধরা বন্ধ থাকে, তখন কোনো মাছ ধরা ট্রলার আমাদের দেশে ঢুকতে পারে না।

এর আগে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ ছিল এর সুফল তুলে ধরে তিনি জানান, এর ফলে আমাদের মাছের উৎপাদন দ্বিগুণ হয়েছে। বিশেষ করে ইলিশ মাছের যে আকাল ছিল, সেটা কমেছে। ইলিশ মাছে হাটবাজার সয়লাব হয়ে গেছে। সমুদ্রসহ নদীর মোহনাগুলোতে মাছের বিচরণ বেড়েছে।

২২ দিন ইলিশ ধরা নিষেধ (৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত) শিরোনামে সংবাদটি তৈরিতে প্রথম আলো সংবাদ মাধ্যমের তথ্য সহযোগিতা নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: ইলিশ কী বাঁচলো তাহলে? বিদেশি দুই ফিশিং জাহাজ সংশ্লিষ্টদের কাগজপত্রে ভুয়া ও বিভ্রান্তিকর তথ্য

About এগ্রিকেয়ার২৪.কম

Check Also

২২ দিন ইলিশ আহরণ

২২ দিন ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, মজুদ নিষিদ্ধ

মৎস্য ডেস্ক, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: আগামী ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

স্বত্ব © এগ্রিকেয়ার টোয়েন্টিফোর.কম (২০১৭-২০১৯)
সম্পাদক: কৃষিবিদ মো. হামিদুর রহমান। নির্বাহী সম্পাদক: মো. আবু খালিদ।
যোগাযোগ: ২৩/৬ আইওনিক প্রাইম, রোড ২, বনানী, ঢাকা ১২১৩।
Email: agricarenews@gmail.com, Mobile Number: 01831438457, 01717622842