পুকুরে নিয়মিত প্রোবায়োটিকস প্রয়োগ

মুহাম্মদ সালাহ উদ্দীন রাশেদ, এগ্রিকেয়ার২৪.কম: মাছ চাষে সফলতা পেতে হলে যে পুকুরে নিয়মিত চুন বা জিওলাইট প্রয়োগ পদ্ধতি ও গুরুত্ব সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ধারণা থাকতে হবে। মাছে কয়েকটি কাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ তার মধ্যে অন্যতম এটি।



মাটি ও পানির গুনাগুণের উপর ভিত্তি করে পুকুরে নিয়মিত প্রয়োজন অনুসারে চুন ও জিওলাইট প্রয়োগ করা উচিত। এছাড়াও পুকুর প্রস্তুতিতে পুকুরে চুন প্রয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

চুন প্রয়োগে মাটির উর্বরতা বাড়ে, মাটিতে থাকা ক্ষতিকর অণুজীবের উপস্থিতি হ্রাস করে, মাটির pH এরমান আদর্শ মাত্রায় নিয়ে এসে মাছ চাষের উপযোগী করে এবং সর্বোপরি পুকুরের ক্ষতিকর জৈব উপাদান অপসারণে সহায়তার মাধ্যমে মাছ চাষের আদর্শ পরিবেশ তৈরি করে।

জিওলাইট প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক মিনারেল এ ভরপুর, যা আধুনিক মৎস্য চাষের জন্য অন্যতম সহায়ক একটি উপাদান। নিয়মিত জিওলাইট প্রয়োগে পানিতে ধনাত্মক ও ঋণাত্মক আয়নের সামঞ্জস্য বজায় থাকে এবং মাটি ও পানির pH এর সাম্যাবস্থা অক্ষুণ্ণ রাখতে সহায়তা করে।

এছাড়াও চুনের ক্যালসিয়াম এবং জিওলাইটে থাকা মিনারেল সমূহ মাছের দৈহিক বৃদ্ধিতেও দারুন সহায়তা করে।

পুকুরে নিয়মিত চুন বা জিওলাইট প্রয়োগ পদ্ধতি ও গুরুত্ব সংবাদটির লেখক; মুহাম্মদ সালাহ উদ্দীন রাশেদ, এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার (অ্যাকুয়া) আল-মদিনা ফার্মাসিউটিক্যালস লি.।

আরও পড়ুন: পুকুরের মাটি ও পানির বিভিন্ন গুনাগুণ (Parameters) পরিমাপ পদ্ধতি এবং গুরুত্ব

পাঠক মাছ নিয়ে কোন ধরণের সমস্যা বা পরামর্শ দরকার হলে আমাদের ফেসবুক পেজে ম্যাসাঞ্জারে জানাতে পারেন। আমরা আপনার সমস্যা বিশেষজ্ঞদের কাছে তুলে ধরে তার সমাধান জানাবো। এছাড়া আপনার অভিজ্ঞতা, পরামর্শ এবং মাছ চাষের খবর তুলে ধরতে পারেন।